রাঙ্গামাটিতে আইন শৃংখলা কমিটির বিশেষ সভা

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ রাঙ্গামাটি জেলা আইন শৃংখলা কমিটির বিশেষ সভায় চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মোঃ রুহুল আমিন বলেছেন, বাংলাদেশের মাটিতে জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাস বাদ কিংবা মৌলবাদের কোন স্থান নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার শক্ত হাতে উগ্রজঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদ নিয়ন্ত্রনের মাধ্যমে বিশ্ব দরবারে প্রশংসিত হয়েছেন। জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদ এবং মৌলবাদের বিরুদ্ধে সকলকে সমন্বিত ভাবে প্রতিরোধ অব্যাহত রাখার আহবান জানান।
বুধবার (১৭ মে) রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত আইন শৃংখলা সংক্রান্ত বিশেষ সভায় চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি অব পুলিশ এস.এম, মনির-উজ-জামান বিশেষ অতিথি ছিলেন। রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিশেষ সভায় বিজিবির পারিচালক, রাঙ্গামাটির পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান, জেলা কমান্ডার লেঃ কর্ণেল রিদুয়ান, সিভিল সার্জন ডাঃ শহীদ তালুকদার, পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মূছা মাতব্বর, জেলা পরিষদের প্রাক্তন চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, মানবাধিকার কমিশনের সদস্য অধ্যাপিকা বাঞ্চিতা চাকমাসহ জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, পেশাজীবি মহলের প্রতিনিধিবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
সভায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার সার্বিক আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে বলে বক্তারা জানান। মার্চ মাসের তুলনায় এপ্রিল মাসে অপরাধ চিত্র কমে আসায় সভায় সন্তুষ্ঠি প্রকাশ করা হয়।
সভায় মাদক দ্রব্যের বিরুদ্ধে প্রশাসনের অভিযানে জিরো টলারেন্স নীতি অব্যাহত রাখা হবে এবং এই ক্ষেত্রে কাউকে রেহাই দেয়া হবেনা বলে সভায় জানানো হয়। সভায় রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম রুটের বিভিন্ন অংশের সড়কে পুলিশী টহল বৃদ্ধিসহ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের কার্যক্রম জোরালো করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ২৬ বছর পূর্তি উদযাপন বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ থাকা সত্ত্বেও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় শান্তিচুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নে অঙ্গিকারাবদ্ধ ——পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসনবিধি আইন বহাল রাখার ষড়যন্ত্র প্রতিরোধে আশু করণীয় শীর্ষক-গোলটেবিল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত : উপনিবেশিক ও অসাংবিধানিক ১৯০০ সালের পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসনবিধি আইন বহাল রাখার ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ করতে হবে–সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক এমপি