দৈনিক গিরিদর্পণ সম্পাদকের শোক : রাঙ্গামাটির বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক আতিকুর রহমানের ইন্তেকাল

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ রাঙ্গামাটির বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক আতিকুর রহমান ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নেলিল্লাহে —–রাজেউন)। ১৬ অক্টোবর মঙ্গরবার দুপুর ১টা ৫ মিনিটে তিনি মারা যান। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন।
সিলেটে তার পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে ,গত ৯ মাস ধরে তিনি শয্যাশায়ী ছিলেন। সিলেটের উপশহর -১ এ তাঁর ছোট ছেলে ফয়েজুর রহমানের বাসায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৬ বছর। তিনি ৩ ছেলে ও ৩ মেয়ে সহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন রেখে গেছেন।
মঙ্গলবার বাদএশা সিলেটের হযরত শাহ জালালের ( রাঃ ) দরবার শরীফ প্রাঙ্গনে মরহুমের জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। পরে দরবার শরীফের কবরস্থানে তাকে দায়ন করা হয়।
লেখক ও গবেষক আতিকুর রহমান সুদীর্ঘ বছর রাঙ্গামাটির তবলছড়ি ডি এস বি কলোনীতে বসবাস করেন। জীবনের শেষ বষসে তিনি সিলেটে ছেলে মেয়েদের কাছে চলে যান।
জীবদ্দশায় লেখক ও গবেষক আতিকুর রহমান পার্বত্য শান্তি প্রক্রিয়ার জন্য প্রচুর লেখালেখি করে গেছেন। তিনি রাঙ্গামাটির সাপ্তাহিক বনভূমি ও দৈনিক গিরিদর্পণের একজন নিয়মিত কলাম লেখক ছিলেন। এছাড়া লেখক ও গবেষক আতিকুর রহমান একাধিক জাতীয় দৈনিকেও পার্বত্য চট্টগ্রাম পরিস্থিতির উপর অসংখ্য কলাম লিখেছেন। পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে তাঁর লেখা বেশ কয়েকটি বই রয়েছে।
লেখক ও গবেষক আতিকুর রহমানের মৃত্যুতে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের সর্বপ্রথম দৈনিক সংবাদপত্র দৈনিক গিরিদর্পণ সম্পাদক ও সাপ্তাহিক বনভূমির সম্পাদক এ,কে,এম মকছুদ আহমেদ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এক শোক বার্তায় তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের মৎস্য সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় জেলা পর্যায়ে স্টেকহোল্ডার ক্যাম্পেইন বিষয়ক কর্মশালা প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি ঘরে ঘরে কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিকল্পনা বাস্তবায়নে আমাদের আরো গ্রহনযোগ্য প্রকল্প হাতে নিতে হবে —–দীপংকর তালুকদার এমপি