বান্দরবানে চুরির আশংকায় ৩০০ বছরের পুরোনো বুদ্ধমূর্তি সিলগালা

॥রাহুল বড়–য়া ছোটন, বান্দরবান॥ প্রায় তিনশত বছরের পুরোনো এক বুদ্ধমূর্তির সিলগালা করা হয়েছে। বান্দরবান জেলা সদরের রাজগুরু বৌদ্ধ বিহারে অধ্যক্ষ প্রয়াত উচহ্লা ভান্তের মৃত্যুর ঘটনায় ওই বিহারের সার্বিক কর্মকান্ড পরিচালনায় বিশৃংঙ্খলা দেখা দেওয়ার আশংকায় প্রায় তিনশত বছরের পুরোনো এক বুদ্ধমূর্তির সিলগালা করে দেয় প্রশাসন। মঙ্গলবার বিকালে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শহিদুল ইসলাম এই বুদ্ধমূর্তির সিলগালা করেন এবং চাবি পার্বত্য জেলা পরিষদের হেফাজতে প্রদান করে। বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা জানান, প্রাচীনতম ও ঐতিহ্যবাহী এই বুদ্ধমূর্তিটি বুদ্ধের জীবদ্দশায় তৎকালীন আরাকানের রাজা চন্দ্রসুর্যের আমলে নির্মিত বলে বৌদ্ধ সমাজের নিকট স্বীকৃত, উক্ত বৌদ্ধ মূর্তিটি বান্দরবান বা বাংলাদেশের একটি প্রতœতাত্বিক নির্দশন হিসেবে পরিগণিত হয়। তাই রাজগুরু বৌদ্ধ বিহারের বিহার অধ্যক্ষ প্রয়াত উচহ্লা ভান্তের আকস্মিক প্রয়ানে বিহারের সার্বিক কর্মকান্ড পরিচালনায় বিশৃংখলা দেখা দেয়ার আশংকা আমরা বান্দরবান পার্বত্য জেলা সদরের রাজগুরু বৌদ্ধ বিহারে বুদ্ধমূর্তিটি সিলগালা করে রেখেছি। তিনি আরো জানান, বৌদ্ধ মূর্তিটির পাশাপাশি আমরা এই বিহারের সকল সম্পত্তির তথ্য তালিকা করছি এবং পরবর্তীতে বিহার পরিচালনার জন্য সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। প্রসঙ্গত, গত ১০ এপ্রিল বান্দরবান জেলা সদরের রাজগুরু বৌদ্ধ বিহারে বিহারাধ্যক্ষ উচহ্লা ভান্তে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চট্টগ্রামের ম্যাক্স হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন, আর এদিকে কোভিড ১৯ ভাইরাসের সংক্রামকের কারণে তাকে চট্টগ্রাম থেকে বান্দরবান না এনে চট্টগ্রামের রাউজানের খৈয়াখালী বৌদ্ধ বিহারে তার মরদেহ রাখা হয়। অন্যদিকে বান্দরবান জেলা সদরের রাজগুরু বৌদ্ধ বিহারে বিহারাধ্যক্ষ উচহ্লা ভান্তের মৃত্যুতে তার স্থলাভিষক্ত কে হবেন, স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি কারা দেখাশোনা করবে তা নিয়ে শুরু হয় ধু¤্রজাল।

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের মৎস্য সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় জেলা পর্যায়ে স্টেকহোল্ডার ক্যাম্পেইন বিষয়ক কর্মশালা প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি ঘরে ঘরে কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিকল্পনা বাস্তবায়নে আমাদের আরো গ্রহনযোগ্য প্রকল্প হাতে নিতে হবে —–দীপংকর তালুকদার এমপি