বালাঘাটায় শুরু হয়েছে অষ্টপ্রহরব্যাপী মহানামযজ্ঞ

॥রাহুল বড়–য়া ছোটন,বান্দরবান॥ বর্ণাঢ্য আয়োজনে বান্দরবানের বালাঘাটা সনাতনী সম্প্রদায়ের আয়োজনে শুরু হয়েছে বিশ্বশান্তি গীতাযজ্ঞ ও অষ্টপ্রহরব্যাপী মহানামযজ্ঞ। গতসোমবার বিকেলে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জলন,গীতা পাঠ প্রতিযোগিতা ও ধর্মীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্টানের মধ্য দিয়ে এই বিশ্বশান্তি গীতাযজ্ঞ ও অষ্টপ্রহরব্যাপী মহানামযজ্ঞের উদ্বোধন হয়। গতকাল মঙ্গলবার সকালে বালাঘাটা সার্বজনীন শ্রী শ্রী রক্ষাকালী মন্দিরে বিশ্বশান্তি কামনায় শুরু হয় বিশ্বশান্তি গীতাযজ্ঞ। এতে পৌরহিত্য করেন চট্টগ্রাম বাঙ্গালহালিয়ার জ্যোতিশ্বর বেদান্ত মঠ ও মিশনের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ স্বামী অভেদানন্দ ব্রহ্মচারী মহারাজ। অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন বালাঘাটা সার্বজনীন শ্রী শ্রী রক্ষাকালী মন্দিরের সভাপতি প্রিয়তোষ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সুভাষ কান্তি দাশ,উৎসব উদযাপন পরিষদের সভাপতি  রাখাল দত্ত,সাধারণ সম্পাদক প্রসেনজিত দাশ,কোষাধ্যাক্ষ বিশ্বজিত দাশসহ প্রমুখ । বিশ্বশান্তি গীতাযজ্ঞ অনুষ্ঠানে জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন এলাকার সনাতন ধর্মালম্বী নারী পুরুষেরা উপস্থিত হয়ে এই বিশ্বশান্তি গীতাযজ্ঞে অংশ নেয়। ১৫ মার্চ ব্রাহ্মমুহুর্তে মহানামযজ্ঞের শুভারম্ব ও অহোরাত্র নাম সংকীর্ত্তন আর গৌরলীলা পরিবেশনসহ দুপুর ও রাতে চলবে আনন্দবাজারে মহাপ্রসাদ বিতরণ। অনুষ্ঠানে নামাঞ্জলি পরিবেশন করবেন শ্রী রাম সম্প্রদায় চট্টগ্রাম,গোবিন্দ মহারাজ সম্প্রদায় চট্টগ্রাম,আদি নারায়ণ সম্প্রদায় চট্টগ্রাম ও অনন্ত কৃষ্ণ সম্প্রদায় চট্টগ্রাম। আগামী ১৬ই মার্চ ব্রাহ্মমুহুর্তে নগর পরিক্রমা ও মহানামযজ্ঞের পূর্ণাহুতির মধ্য দিয়ে চারদিনব্যাপী এই বিশ্বশান্তি গীতাযজ্ঞ ও অষ্টপ্রহরব্যাপী মহানামযজ্ঞের শেষ হবে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ২৬ বছর পূর্তি উদযাপন বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ থাকা সত্ত্বেও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় শান্তিচুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নে অঙ্গিকারাবদ্ধ ——পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসনবিধি আইন বহাল রাখার ষড়যন্ত্র প্রতিরোধে আশু করণীয় শীর্ষক-গোলটেবিল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত : উপনিবেশিক ও অসাংবিধানিক ১৯০০ সালের পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসনবিধি আইন বহাল রাখার ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ করতে হবে–সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক এমপি