রাঙ্গামাটিতে জমি দখলের অভিযোগে স্বামী-স্ত্রী গ্রেফতার

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ রাঙ্গামাটিতে জমি দখলের অভিযোগে স্বামী-স্ত্রী দুই দখলবাজকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২১ জুলাই) সকালের দিকে পরিচালিত অভিযানে এ দম্পতিকে গ্রেফতার করে দুপুরে আদালতে চালান দিয়েছে রাঙ্গামাটি কোতোয়ালি থানা পুলিশ। গ্রেফতাররা হলেন- রাঙ্গামাটি সদর উপজেলার বালুখালী ইউনিয়নের সাপমারা পাহাড় পাড়ার বাসিন্দা আবু আলম (৬০) ও তার স্ত্রী আছিয়া বেগম (৫২)। এ ছাড়া বুধবার রাতে তাদের ছেলে সোহেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানায় পুলিশ।
জানা যায়, আবু আলম ও তার স্ত্রী আছিয়া বেগমসহ তাদের ছেলেদের বিরুদ্ধে কাপ্তাই হ্রদসহ বিভিন্ন জায়গা দখল, চাঁদাবাজি, বিভিন্ন জনের বাগান থেকে গাছ কেটে বিক্রিসহ বিভিন্ন অভিযোগে বেশ কিছু মামলা দায়ের করা হয়। তাদেরকে অবিলম্বে গ্রেফতারের জন্য বৃহস্পতিবার রাঙ্গামাটি শহরে মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছেন এলাকাবাসী। এর পাঁচ দিনের মাথায় অভিযুক্ত এ দম্পতিকে গ্রেফতার করল পুলিশ। এলাকায় আবু আলম-আছিয়া বাহিনী নামে পরিচিত তারা।
এ ব্যাপারে রাঙ্গামাটি কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কবির হোসেন বলেন, তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। কেপকো আজিজ লিমিটেড নামে একটি কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. জোবায়ের ইকবাল বাদী হয়ে কোম্পানির জায়গা দখল করার অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলায় আবু আলম ও তার স্ত্রী আছিয়া বেগমকে গ্রেফতার করে আদালতে চালান দেয়া হয়েছে। এর আগে সোহেল নামে আরেক আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।
অভিযোগের তথ্যমতে, জেলার উপজেলা সদরের বালুখালী ইউনিয়নের সাপমারা পাহাড় বাঙালি পাড়ায় আবু আলম ও তার স্ত্রী আছিয়া বেগমসহ তাদের পরিবার বেপরোয়া জায়গা দখল, বিভিন্ন জনের বাগান থেকে গাছ কেটে বিক্রি ও চাঁদাবাজিতে জড়িত। তাদের বেপরোয়া অপকর্মে অতিষ্ঠ এলাকার সাধারণ মানুষ। কেপকো আজিজ লিমিটেড কোম্পানির সিংহভাগ জায়গা বেদখলে নেয়ার চেষ্টায় লিপ্ত আবু আলম ও আছিয়া বেগম গং। এতে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করে কোম্পানিটি।
কোম্পানিটির প্রশাসন বিভাগের মো. জোবায়ের ইকবাল অভিযোগ করে বলেন, কোম্পানিটির জায়গাটি দেখাশোনার জন্য আবু আলমকে কেয়ারটেকার রেখেছিলেন তারা। সেই সুযোগে সিংভাগ জায়গা বেদখলে নেয়ার অপেচষ্টায় লিপ্ত আলম ও তার স্ত্রী এবং ছেলেরা। বাগানের সবগুলো গাছ কেটে বিক্রি করে দিয়েছে তারা। এতে কোম্পানির ৭-৮ লাখ টাকা ক্ষতি করেছে আবু আলম গং। ওই এলাকায় কেপকো আজিজ লিমিটেডের ৮ একর জায়গা রয়েছে। এসবের সিংহভাগই বেদখলে করেছে করেছে দখলবাজরা।
নেজাম উদ্দিন ফকির, শাহাদাৎ হোসেন, জাহিদা বেগম, জামাল হোসেন, জসিম উদ্দিনসহ এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, আছিয়া বেগম রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির পরিচয় দিয়ে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবে তিনি এলাকায় গড়ে তুলেছেন একটি সন্ত্রাসী বাহিনী। এতে যুক্ত তার স্বামী আবু আলমসহ ছেলেরা। স্থানীয় এলাকায় তাদের পরিচিতি আবু আলম-আছিয়া বাহিনী নামে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের মৎস্য সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় জেলা পর্যায়ে স্টেকহোল্ডার ক্যাম্পেইন বিষয়ক কর্মশালা প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি ঘরে ঘরে কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিকল্পনা বাস্তবায়নে আমাদের আরো গ্রহনযোগ্য প্রকল্প হাতে নিতে হবে —–দীপংকর তালুকদার এমপি