॥ রাহুল বড়ুয়া ছোটন / এসকে খগেশ প্রতি চন্দ্র খোকন ॥ পার্বত্য অঞ্চলে কোন ভাবেই জঙ্গীদের আস্থানা গড়ে তুলতে দেয়া হবে না বলে মন্তব্য করেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এম.পি। তিনি বলেন, এই অঞ্চলের সহজ সরল মানুষ গুলোকে ভুল বুঝিয়ে জঙ্গীরা তাদের ফায়দা লোটার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। যাতে জঙ্গীরা কোন ভাবেই এই অঞ্চলে আস্থানা গড়তে না পারে তার জন্য সাধারণ জনগণকে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহবান জানান।
গতকাল লামা উপজেলায় সরকারের বাস্তবায়িত ২৩ কোটি টাকার ১১ টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন, ভিত্তিপ্রস্তর, হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
রুপসীপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ছাচিং প্রু মার্মার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জনসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন  পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এম.পি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) হারুণ-অর রশীদ, বান্দরবানের সহকারী পুলিশ সুপার অর্ণিবান চাকমা, লামা পৌরসভার মেয়র মোঃ জহিরুল ইসলাম,  পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য কাজল কান্তি দাশ, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য লক্ষীপদ দাশ, পরিষদ সদস্য মোস্তফা কামাল, সদস্য ফাতেমা পারুল, সদস্য কিউচিং চাক, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বান্দরবান ইউনিটের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আব্দুল আজিজ, এলজিইডি জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী মোহন চাকমা, লামা আর্মি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার লেফটেনেন্ট রাশেদ, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইসমাইল, লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার খিন ওয়ান নু, রূপসীপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শহীদুল ইসলামসহ প্রমূখ।
বীর বাহাদুর বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের মানুষ শান্তিপ্রিয়। এই অঞ্চলের মানুষের উন্নয়নের কাজে কোন চাঁদাবাজী আমরা সহ্য করবো না। তিনি বলেন, উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করতে গেলে যদি চাঁদা দিতে হয় তাহলে সেই উন্নয়ন কার্যক্রম ভালো হয় না। তিনি বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের এই সকল চাঁদাবাজী ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ হই তাহলে আমাদের উন্নয়ন কর্মকান্ডে কেউ চাঁদা দাবী করতে পারবে না। উন্নয়ন কর্মকান্ড শতভাগ ভালো হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
এসময় তিনি লামা উপজেলা পরিষদের সামনে স্থানীয় সরকার অধিদপ্তর কর্তৃক লামা পৌরসভাকে দেয়া ডাম্পার ট্রাকের চাবি লামা পৌরসভার মেয়রের কাছে হস্তান্তর করেন। এছাড়া পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী মসজিদ ও বৌদ্ধ ক্যাং এ সাউন্ড সিস্টেম প্রদান, একটি বাড়ি একটি খামার ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর, ৮ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে পাচউবো কর্তৃক মাতামুহুরী নদীর উপর রাজবাড়ি পয়েন্টে পিসি গার্ডার ব্রিজের ভিত্তিপ্রস্তর, লামামুখ হতে শিলেরতুয়া রাস্তার ভিত্তিপ্রস্তর,২০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে তপোবন বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্রের উদ্বোধন, ২২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ভদ্রসেন পাড়া ধর্মরত্ম বৌদ্ধ বিহারের উদ্বোধন, ১০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে রাজবাড়ী নালন্দা বৌদ্ধ বিহারের উদ্বোধন, ৭ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে লামা পৌর এলাকায় ডাস্টবিন সরবরাহ, ৫ কোটি ২৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে রূপসীপাড়ায় লামা খালের উপর নির্মিত ব্রিজের উদ্বোধন, রুপসীপাড়া হতে মংপ্রু পাড়া রাস্তার ভিত্তিপ্রস্তর, ২০ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা ব্যয়ে রুপসীপাড়া মসজিদের দ্বি-তল ভবনের উদ্বোধন, ১৬ লক্ষ আটষট্টি হাজার রূপসী পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দ্বিতল ভবন নির্মান, ও সবশেষে স্কুল মাঠে রুপসীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত এক বিশাল জনসভায় অংশগ্রহণ করেন।
প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর বলেন, এই এলাকার মানুষ আমাকে ৫ বার ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে তাদের খাদেম হিসেবে কাজ করার সুযোগ দিয়েছে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে কাজ করে যাচ্ছি। সকলের প্রচেষ্টায় ২০২১ সালের মধ্যে এই দেশ মধ্যম আয়ের দেশ হবে।
এ সময় পার্বত্য প্রতিমন্তীকে একনজর দেখতে লামার সর্বস্তরের জন-সাধারণের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে অর্ধশত তোরণ নির্মাণ করে মন্ত্রীকে কয়েক হাজার নর-নারী ফুল দিয়ে বরণ করেন। সকাল ১০টায় জননেতা বীর বাহাদুর লামায় উপস্থিত হলে উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে তাকে ফুলের দিয়ে বরণ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *